সেবার মাধ্যমে ভয়কে জয় করতে চান ডাক্তার ও নার্সগণ

ডেস্ক রিপোর্ট:

করোনা ভাইরাসের প্রভাব ও আতঙ্কে বর্তমান সময়ে অনেক ডাক্তার সাধরণ মানুষকে চিকিৎসা সেবা দেয়া থেকে বিরত রয়েছেন। অনেক হাসপাতালগুলোতে ডাক্তার শূণ্য। জানা যাচ্ছে অনেকে চাকুরীও ছেড়ে দিয়েছেন। কিন্তু মফস্বল শহরের একটি বেসরকারী হাসপাতাল মির্জাপুর জেনারেল হাসপাতাল এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। ডাক্তারগণ করোনা সম্পর্কে সরকারী নির্দেশনা মেনে সাধারণ মানুষকে সকল ধরনের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সেবার মাধ্যমে ভয়কে জয় করতে চান তারা।

 

বুধবার মির্জাপুর উপজেলা সদরের হাসপাতাল রোডে অবস্থিত বেসরকারী হাসপাতাল মির্জাপুর জেনারেল হাসপাতাল এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে গিয়ে দেখা গেছে ডাক্তার ও নার্সগণ সুরক্ষিত পোশাক পিপিই পড়ে মানুষকে চিৎিসা সেবা দিতে প্রস্তুত রয়েছেন এবং চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এখানে প্রতিদিন ৫/৬ জন রোগীকে বিভিন্ন ধরনের অপারেশন ছাড়াও আউটডোরে সকল ধরনের রোগীকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তার ও নার্সগণ। সাধারণ সর্দি কাঁশি ও জ্বরের রোগীকেও চিকিৎসা দিয়ে তাদের সচেতনতামূলক মরামর্শ দিচ্ছেন ডাক্তারগণ।

 

কর্তব্যরত ডাক্তার মো. আনোয়ারুল কাদের সাঈদ বলেন, পরিস্থিতি বুঝে ও নির্দেশনা মেনে সাধারণ মানুষকে চিকিৎসা সেবা দেয়া ডাক্তারদের কোন অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। দেশের ক্রান্তিলগ্নে না বুঝে না জেনে আতঙ্কিত হয়ে চিকিৎসা সেবা থেকে বিরত থাকা অমানবিক। নিজেকে সুরক্ষিত রেখে চিকিৎসা সেবা দেয়া একজন ডাক্তারের কোন অসুবিধা নেই। বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা নিয়ে আপনাদের মধ্যে কোন ভয় কাজ করে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, নিজে সুরক্ষিত থেকে ও নির্দেশনা মেনে রোগীকে চিকিৎসা দিলে ভয়ের কোন কারণ নেই। রোগীকে সেবা দিয়ে ভয়কে জয় করতে চান বলে তিনি জানান।

 

কর্তব্যরত নার্স সীমা বলেন, রোগীর সেবায় ভয় এড়িয়ে চলতে হবে। সেবাটাই মূল উদ্দেশ্য বলে তিনি জানান।

 

কর্তব্যরত ডাক্তার মো. মনোয়ার হোসেন বলেন, এখনকার প্রেক্ষাপটে যে সমস্ত ডাক্তার রোগীকে এড়িয়ে চলছেন তাদের করোনা সম্পর্কে পরিপূর্ণ জ্ঞান নেই। তারা রোগী দেখতে ভয় পাচ্ছেন। আবার যাদের করোনা সম্পর্কে জ্ঞান বা ধারণা আছে তারাও সুরক্ষার অভাবে ভয় পাচ্ছেন। কিন্তু আমরা সব ধরণের রোগীকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি। সাধারণ সর্দি কাঁশি ও জ্বর নিয়ে আসলেও তাকে চিকিৎসা দিয়ে সচেতনতামূলক মরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি জানান।