নানা অনিয়মে সাত ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক
ত্রাণ আত্মসাৎসহ নানা অনিয়মে তিন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান ও চার মেম্বারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। সম্প্রতি তাদের বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে আলাদা আলাদা আদেশ জারি করা হয়েছে।
আদেশে উল্লেখ করা হয়, ইয়াবা সেবনের সরঞ্জামাদিসহ পুলিশের কাছে হাতেনাতে গ্রেফতার হন বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলার বেতাগী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম। এরপর তার বিরুদ্ধে বরগুনা সদর থানায় ফৌজদারি মামলা হয়। এজন্য তাকে ‘স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯’ অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
ত্রাণসামগ্রী আত্মসাতের দায়ে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে থাকায় ঢাকার ধামরাই উপজেলার ৪ নং যাদবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান ওরফে মিজুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। ভিজিডি কর্মসূচির প্রায় সাড়ে ৭ টন চাল আত্মসাতের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত এবং ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের সময় দুস্থদের জন্য বরাদ্দ চাল আত্মসাতের অভিযোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে এক লাখ টাকা জরিমানা দেয়ায় ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার ৫ নং বানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাদী হুমায়ুন কবীরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক সুপারিশও করেছিলেন। অপরদিকে বয়স্ক ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার ৫ নং বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. রকনুজ্জামানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
ভিজিএফের (মৎস্য) চাল বিতরণে অনিয়ম, জেলেদের ভুয়া আইডি কার্ড তৈরি করে সরকারি চাল আত্মসাৎ ও সরকারি সহায়তা দেয়ার নামে জনগণের থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় বরগুনার সদর উপজেলার ৯ নং বালিয়াতলী ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. শামীম গাজীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
এছাড়া ত্রাণের দাবিতে জনগণকে রাস্তায় ব্যারিকেড ও উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন অফিস ভাঙচুরের উসকানি দেয়ার অভিযোগে করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে থাকায় রংপুরের পীরগাছা উপজেলার ৭ নং পীরগাছা ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার মো. ফিরোজ সরকারকে বরখাস্ত করা হয়েছে।
খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির কার্ড দেয়ার নাম করে হতদরিদ্রদের থেকে অর্থ আদায় এবং হত্যা মামলার আসামি হিসেবে অভিযুক্ত হয়ে পলাতক থাকার বিষয়টি স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার ৯ নং আচারগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার সিরাজুল ইসলাম মিন্টুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।