পেয়ারা হাজার হাজার সমস্যা দূর করে সুস্থ রাখে শরীর

লাইফস্টাইল ডেস্ক

সবচেয়ে সহজলভ্য সস্তা দেশি ফলের একটি হচ্ছে পেয়ারা। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ পেয়ারা সবারই বেশ পছন্দের। স্বাদ ও পুষ্টিগুণে অন্য যেকোনও ফলকে দাঁড় করিয়ে কয়েক গোল দিতে পারে পেয়ারা ৷ পেয়ারা অত্যন্ত সহজলভ্য ফল ৷

একটা পেয়ারা ১০-১২ টি আপেলের সমতুল্য ৷ কিন্তু আপেলের থেকে অনেকটাই দাম কম ৷  শিশু থেকে বৃদ্ধ, পেয়ারা প্রতিটি মানুষের কাছেই অত্যন্ত প্রিয় ও পুষ্টিদায়ক ফল ৷

পেয়ারা ডায়াবেটিস রোগীদের পক্ষেও অত্যন্ত উপকারী ৷ শুধুই ডায়বেটিসই কেন? কোলেস্টেরল, উচ্চরক্ত চাপ নিযন্ত্রণ করে, পেয়ারা অনেক এমন গুণ রয়েছে যা অজানা হলেও অত্যন্ত উপকারী ৷

প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় যদি পেয়ারা রাখা যায় সেক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকৃত হওয়া সম্ভব ৷ পেয়ারা বছর জুড়েই পাওয়া যায়। তবে এটা পেয়ারার মৌসুম, অন্য সময়ের তুলনায় অনেক অল্প দামে এখন পেয়ারা পাওয়া যাচ্ছে। পেয়ারার স্বাস্থ্য উপকারিতার কথা জানলে, প্রতিদিন ফলের তালিকায় একটি পেয়ারা অবশ্যই রাখবেন। আসুন জেনে নিই, বিশেষজ্ঞরা যা বলেন:

• পেয়ারাতে ফাইবার বা আঁশ এবং গ্লাইসেমিক রযেছে। এছাড়া ফাইবার এবং আঁশ থাকার কারণে পেয়ারা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়
• পেয়ারা ডায়াবেটিস রোগীদের পক্ষেও অত্যন্ত উপকারি
• কোলেস্টেরল, উচ্চ রক্তচাপ নিযন্ত্রণ করে
• দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় এবং চোখের ছানিপড়া রোধ করে
• হৃদরোগ হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়
• গর্ভবতী নারীদের জন্যও বিশেষভাবে উপকারি
• খাবারের রুচি বাড়াতেও খেতে পারেন পেয়ারা।

মেদ বা ওজন কমাতে বেশি বেশি ফাইবারযুক্ত বা অধিক তন্তুযুক্ত খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা। ১০০ গ্রাম পেয়ারায় মাত্র ৮ দশমিক ৯২ গ্রাম চিনি থাকে। তাই ওজন কমাতে চাইলে বিকেলের খাবারে ভাজাপোড়া বাদ দিয়ে যোগ করে ফেলুন পেয়ারা।

মহামারি করোনাকালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও জুড়ি নেই পেয়ারার।