আওয়ামী লীগ তাসের ঘর নয় যে টোকায় পড়ে যাবে: ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক:

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের‌ বলেছেন, সত্তর বছরের পুরনো এই দল ‘তাসের ঘর নয় যে টোকা লাগলে পড়ে যাবে’। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইডিইবি) প্রতিনিধি সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে নিজের বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে একথা বলেন তিনি। ‘ক্ষমতা তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে’- বলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মন্তব্যের জবাবে কাদের বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শক্তির উৎস বন্দুকের নল নয়, ক্ষমতার উৎস দেশের জনগণ। তাই আওয়ামী লীগ তাসের ঘর নয় যে, টোকা লাগলে পড়ে যাবে। “আমাদের দলের শেকড় বাংলাদেশের মাটির অনেক গভীরে। মাটি ও মানুষের দল হিসেবে জনমানুষের বুকের গভীরে শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ ঠাঁই করে নিয়েছে। দেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে, অর্জনে, সমৃদ্ধিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব দিয়েছে; প্রতিটি দুর্যোগে-সংকটে ৭০ বছর ধরে জনগণের পাশে থেকেছে। “এদেশের সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন মহান স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব। তাই যারা মনে করে আওয়ামী লীগের অবস্থান তাসের ঘরের মতো তারা বোকার স্বর্গে বাস করছেন। ” করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় মানুষকে আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিশ্বের অনেক উন্নত দেশ যখন কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়েছে, তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ ও দূরদর্শী সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ সফলভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করে যাচ্ছে। অনেক উন্নত দেশের চেয়ে বাংলাদেশে মৃত্যু ও আক্রান্তের হার কম। মহামারী পরিস্থিতিতেও প্রধানমন্ত্রী জীবন ও জীবিকার চাকা সচল রাখতে সক্ষম হয়েছেন দাবি করে কাদের বলেন, “করোনার প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও আমাদের রপ্তানি আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। ৫.২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। রিজার্ভ ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে।“ তবু আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই মন্তব্য করে সরকারের সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী বলেন, অনেকে দেশে ইতিমধ্যে সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গ শুরু হয়েছে। প্রতিবেশী দেশ এখন বিশ্বের দ্বিতীয় অবস্থানে। “তাই আমাদের এখন সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে; মেনে চলতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। সামান্য অবহেলা জীবনের চিরচেনা পথ থেকে আমাদের ছিটকে দিতে পারে।” এজন্য মানুষকে সচেতন করা এবং মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে প্রকৌশলীদের প্রতি তিনি আহ্বান জানান। দেশে আন্তর্জাতিক মানের আরো ২৩টি ও মেয়েদের জন্য আরো ৪টি সরকারি পলিটেকনিক স্থাপনের কাজ এগিয়ে চলছে বলে জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, একইসঙ্গে চারটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে, যার মধ্যে দুটি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উচ্চশিক্ষার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের প্রতিটি উপজেলায় টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ স্থাপন সরকারের লক্ষ্য।