ইসরাইলের রক্তপাতকে যারা সমর্থন দিচ্ছে তাদেরও পালা আসবে: এরদোগান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, এটিভি সংবাদ 

গাজা ও পশ্চিম তীরে নিরহ ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক। দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান বলেছেন, যারা চুপ থেকে কিংবা প্রকাশ্যে ইসরাইলি রক্তপাতকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে, জেনে রাখা উচিত, একদিন তাদেরও পালা আসবে।

শুক্রবার তুরস্কের ক্ষমতাসীন দল একে পার্টির ভার্চুয়াল সভায় এমন মন্তব্য করেন তিনি। খবর আল জাজিরা, আনাদোলু এজেন্সির।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে তুরস্কের সরকার প্রধান বলেন, গোটা দুনিয়া ইসরাইলি ধ্বংসযজ্ঞ উপেক্ষা করে গেলেও তুরস্ক কখনও এটি মেনে নেবে না।

এরদোয়ান বলেন, ওআইসি যদি ইসরাইলি হামলার বিরুদ্ধে জোরালে অবস্থান না নেয় তাহলে এই জোট তার নিজের অস্তিত্বকেই বিনষ্ট করবে।

এর আগে বুধবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে ফোনালাপে ফিলিস্তিনে ইসরাইলি হামলা নিয়ে কথা বলেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট।

তিনি বলেন, নিরাপত্তা পরিষদের তরফ থেকে ইসরাইলকে স্পষ্ট বার্তা দেওয়া প্রয়োজন। তাদের এখানে হস্তক্ষেপ করা দরকার। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত ইসরাইলকে একটা শক্ত শিক্ষা দেওয়া।

ফিলিস্তিনিদের রক্ষায় একটি আন্তর্জাতিক বাহিনী গঠনের কথা বিবেচনা করতেও পুতিনের প্রতি আহ্বান জানান তুর্কি প্রেসিডেন্ট।

এদিকে গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি বর্বরতার প্রতি দৃশ্যত সমর্থন জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ইসরাইলের আত্মরক্ষার অধিকার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সাম্প্রতিক সহিংসতা নিয়ে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সঙ্গে তার কথা হয়েছে বলেও জানান বাইডেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলার পরই ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা জোরালো করার ঘোষণা দেন নেতানিয়াহু।

শনিবারও গাজায় দখলদার বাহিনীর তাণ্ডব অব্যাহত রয়েছে। গত সোমবার থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ১৫০ জনকে হত্যা করেছে দখলদার বাহিনী। নিহতদের মধ্যে ৪০ শিশুও রয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে কমপক্ষে আরও ৮৩০ জন।

গত কয়েক দিন ধরে দফায় দফায় নির্বিচারে ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলে পড়ছে দখলদার বাহিনী। শতাধিক বিমান হামলা চালিয়ে সন্তানসম্ভবা নারী, শিশু, সাধারণ মানুষের ওপর নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী।