ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীকে রক্ত দিয়ে বাঁচাল পুলিশ

নোয়াখালী প্রতিনিধি, এটিভি সংবাদ

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে ধর্ষণের শিকার এক স্কুলছাত্রীকে (১৬) রক্ত দিয়ে বাঁচিয়েছে পুলিশ। সোনামুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ (ওসি) এক সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) তাকে দুই ব্যাগ রক্ত দেন। পরে ওই কিশোরীর অস্ত্রোপচার করা হয়।

সোমবার (২৮ জুন) ভোরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ওই স্কুলছাত্রীর অস্ত্রোপচারের আগে এই দুই পুলিশ কর্মকর্তা তাকে রক্ত দেন।

সোমবার ভোর ৩টায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের আগে ওই কিশোরীর জন্য রক্তের প্রয়োজন হয়। তখন সেখানে উপস্থিত সোনাইমুড়ী থানার ওসি মো. গিয়াস উদ্দিন ও এএসআই আরমান হোসেন তাৎক্ষণিক দুই ব্যাগ রক্ত দেন।

ওসি মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘মামলার প্রয়োজনে ভিকটিমকে দেখতে গিয়েছিলাম। জরুরি রক্তের প্রয়োজন হওয়ায় মানবিক কারণে আমি এবং আরমান হোসেন রক্ত দিয়েছি।’

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম জাগো নিউজকে বলেন, ‘অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে স্কুলছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। তাৎক্ষণিক রক্ত না পেলে জরুরি অস্ত্রোপচার করা সম্ভব ছিল না। অস্ত্রোপচারের সময় ওই স্কুলছাত্রীকে তিন ব্যাগ রক্ত দিতে হয়েছে। পুলিশসহ অন্যান্যরা মোট সাত ব্যাগ রক্ত দিয়েছেন। তাকে এখন পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।’

এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে শরিফুল ইসলাম নূর ও তার সহযোগী দ্বীন মোহাম্মদ জনিকে গ্রেফতার করেছে। পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।