সফল ও জনবান্ধব ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদুর রহমান

অনুসন্ধানী প্রতিবেদক, এটিভি সংবাদ 

ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলাধীন ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ। ১ নং কামারখালী ইউনিয়ন পরিষদ তারমধ্যে অন্যতম একটি। অপরাধ অনুসন্ধান লিমিটেড’র অঙ্গ প্রতিষ্ঠান জাতীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল এটিভিসংবাদডটকম এর আজকের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে রয়েছে মধুখালী উপজেলার কামারখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস।

৩১টি গ্রামের সমন্বয়ে গঠিত উল্লেখিত কামারখালী ইউনিয়ন পরিষদটি। ইউনিয়নটিতে বসবাসকৃত বর্তমান লোকসংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার এবং ভোটার সংখ্যা প্রায় ১৭ হাজার যা ৯টি ওয়ার্ডে কর্তব্যরত মেম্বারদের মাধ্যমে নিয়মতান্ত্রিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে।

মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস এলাকার জনসমর্থনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হন। বিপুল জনসমর্থনে প্রথমবারে নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগ সমর্থিত, যুবসমাজের বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর, ইউনিয়নবাসীর প্রিয়মুখ ও গণমানুষের নেতা মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস। মধুখালী উপজেলার শ্রেষ্ঠ ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে যার নাম উঠে এসেছে তিনি মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস। যুব সমাজের কাছে তিনি অপ্রতিরোধ্য চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত, যার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে ইউনিয়ন এলাকার উন্নয়ন তথা সরকার ঘোষিত প্রতিটি প্রকল্পের কার্যক্রম সুন্দর ও সফলভাবে সম্পাদন করতে সক্ষম।

যার পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুস বিশ্বাস (মৃত) উল্লেখিত ইউনিয়নে ১৫ বছর (তিন ধাপে) সফল চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। মাতা আলেয়া বেগম এ বছর (২০২১) ফরিদপুর জেলার শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এলাকার জনসমর্থন আসে মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাসের উপর।

চেয়ারম্যান শুধু নিজ ইউনিয়ন এলাকায় নয়, উপজেলার সর্বসাধারনের কাছে দলমত নির্বিশেষে এক ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তি হিসেবে প্রতীয়মান। মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস জনসেবা প্রদানের লক্ষ্যে এলাকার ব্যাপক জনসমর্থনে আজ একজন সফল ও জনবান্ধব চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকায় অধিষ্ঠিত।

এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে উৎসর্গ করতে চান জনবান্ধব ও বিচক্ষণ এই চেয়ারম্যান। ইউনিয়ন এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা হয় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে, তিনি এটিভি সংবাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদককে বলেন, আমাদের ইউনিয়নটি একটি আদর্শ ইউনিয়ন, প্রায় ২৫ হাজার লোকের বাস ইউনিয়নটিতে। ইউনিয়নে নেই তেমন কোনো বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং এমনকি জঙ্গীবাদ।

ষাটোর্ধ বয়সের ফজলুল হক বলেন, আমাদের চেয়ারম্যান জাহিদুর রহমান বিশ্বাস একজন ভালো মানুষ, অনেক পরিশ্রমী এবং এলাকার উন্নয়নে যথেষ্ট নিবেদিত। তিনি শুধু এলাকার চেয়ারম্যান-ই নন, তিনি একজন সমাজসেবক, জনবান্ধবও বটে।

১ নং কামারখালী ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় বর্তমান শিক্ষার হার প্রায় ৭০% এবং প্রতি বছরই শিক্ষার হার আনুপাতিক হারে বাড়ছে। ইউনিয়নটিতে শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা থেকে শুরু করে সরকার ঘোষিত সকল প্রকার সুবিধাদি পাচ্ছেন ইউনিয়নে বসবাসকৃত সর্বসাধারন বললেন, আব্দুল জব্বার নামের এক ব্যবসায়ী।

১০ জনের একটি গ্রাম পুলিশ কমিটি রয়েছে ইউনিয়নটিতে, যারা সার্বক্ষনিক এলাকার আইন-শৃংখলা রক্ষায় এবং জনগনের সেবায় কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিমাসে মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নানা বিষয়ে আলোচনা হয়ে থাকে। বিশেষ করে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন ও বাল্যবিবাহ বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, ইভটিজিং বন্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। গুরুত্বপূর্ণ মাসিক এ সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউপি চেয়ারম্যান নিজেই।

এটিভি সংবাদের অনুসন্ধানে দেখা যায়, ১ নং কামারখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছে বড়ই আস্থাভাজন। সফল ও জনবান্ধব এই চেয়ারম্যান এটিভি সংবাদকে বলেন, যতদিন এলাকার জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্বে থাকবো, এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নিবেদিত হয়ে কাজ করে যাবো ইনশাআল্লাহ।

বর্তমান সফল সরকারের সফল ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জাহিদুর রহমান বিশ্বাস। যার আন্তরিকতা, ভালোবাসা ও নিরলস প্রচেষ্টায় ইউনিয়নের সার্বিক উন্নয়ন অব্যাহত আছে এবং আগামীতেও নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হবেন এই জনপ্রতিনিধি এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে মনে করেন, এটিভি সংবাদের সম্পাদক এস এম জামান।