সংগঠন চাঙা করতে জেলা সফরে যুবলীগ নেতারা

আসমা আক্তার (ঢাকা), এটিভি সংবাদ 

করোনা মহামারিসহ নানা কারণে দীর্ঘদিন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কমিটি করতে পারেনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ। ইউনিয়ন ও উপজেলা পরিষদ এবং পৌরসভা নির্বাচন সামনে রেখে সম্মেলনও করতে পারছে না সংগঠনটি। তবে সংগঠন চাঙা রাখতে এরইমধ্যে কেন্দ্রের বিভাগীয় টিম সফরে নেমেছে। বিভিন্ন জেলায় বর্ধিত সভা করে সংগঠন গোছাতে নেতারা তৎপর হয়ে উঠছে।

সবশেষ ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর ৭ম জাতীয় কংগ্রেসের মাধ্যমে যুবলীগের নতুন কমিটি গঠিত হয়। এ সম্মেলনে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণির সন্তান শেখ ফজলে শামস্ পরশকে চেয়ারম্যান ও মাইনুল হোসেন খান নিখিলকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

দলীয় সূত্র বলছে, শেখ হাসিনাসহ অনেকের মূল্যায়ন, পরশ-নিখিলের নেতৃত্বে বর্তমান যুবলীগ একটি মানবিক সংগঠনে পরিণত হয়েছে। চলমান করোনা মহামারিতে যুবলীগের মানবিক কার্যক্রম সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় যুবলীগকে সাংগঠনিকভাবে গতিশীল ও শক্তিশালী করতে বিভিন্ন সাংগঠনিক বিভাগের জেলাগুলোতে বর্ধিত সভা শুরু হয়েছে।

এরই অংশ হিসেবে বরিশাল বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলম ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে গত ১০ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালী জেলা ও ১১ সেপ্টেম্বর বরগুনা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পিরোজপুর এবং ২৪ সেপ্টেম্বর ঝালকাঠি জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

ঢাকা উত্তর সাংগঠনিক বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংগঠনের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল আলম জোয়ার্দার সৈকত ও সাধারণ সম্পাদক মো. জহির উদ্দিন খসরুর নেতৃত্বে গত ১১ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ জেলা ও ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগের এবং গতকাল ১২ সেপ্টেম্বর নেত্রকোনা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। আগামী ২২ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ সাংগঠনিক বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাইফুর রহমান সোহাগের নেতৃত্বে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর খাগড়াছড়ি, ১৬ সেপ্টেম্বর রাঙ্গামাটি ও ১৭ সেপ্টেম্বর বান্দরবান জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

চট্টগ্রাম উত্তর সাংগঠনিক বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মশিউর রহমান চপলের নেতৃত্বে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুর, ২২ সেপ্টেম্বর নোয়াখালী ও ২৩ সেপ্টেম্বর ফেনী জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সুব্রত পাল ও সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. ড. শামীম আল সাইফুল সোহাগের নেতৃত্বে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর ঝিনাইদহ ও ১৬ সেপ্টেম্বর মাগুরা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা ও সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর নাটোর, ১৮ সেপ্টেম্বর রাজশাহী জেলা ও রাজশাহী মহানগর যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে।

স্বাধীনতা-পরবর্তী ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলে শামস পরশের বাবা শেখ ফজলুল হক মণি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। মণির ছোটভাই শেখ ফজলুল করিম সেলিমও দীর্ঘসময় চেয়ারম্যান হিসেবে যুবলীগকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের এ যুব অঙ্গসংগঠন স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চার মূল নীতিকে সামনে রেখে বেকারত্ব ও দারিদ্র্য দূরীকরণ, দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষা সম্প্রসারণ, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদান, অসাম্প্রদায়িক ও আত্মনির্ভরশীল অর্থনীতির বাংলাদেশ গড়ে তোলা এবং যুবসমাজের ন্যায্য অধিকারগুলো প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখছে।