৪ বছরের শিশু ধর্ষিত, ধর্ষক পলাতক!

দ্রুত বিচারের দাবি করছেন এটিভি সম্পাদক

সৈকত মনি, এটিভি সংবাদ 

প্রতিনিয়ত ধর্ষণ, খুন এ যেন ধর্ষণের মহারাজ্য। ঘৃণাভরে বলতে হয় আমরা বিচারে ব্যর্থ। যে দেশে ৪ বছরের মেয়ের ইজ্জত লুণ্ঠিত হয়, নিরাপত্তাহীনতায় থাকে ধর্ষিত পরিবার সেখানে আর কি বিচার?

এমন এক ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর এলাকায়। চার বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শিশুটি বর্তমানে জেলা সদর হাসপতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

গত ৪ আগস্ট ধর্ষণকাণ্ডের পর থেকে গা ঢাকা দিয়েছে ধর্ষক মোবারক মিয়া (১৬)। মোবারক মিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের নাসিরপুর গ্রামের লিচু মিয়ার ছেলে।

শিশুটির পরিবার ও স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়ির পাশে স্থানীয় একটি মক্তবের কাছে খেলাধুলা করছিল শিশুটি। এমন সময় শিশুটিকে একা পেয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত মোবারক মিয়া। শিশুটি
চিৎকার শুরু করলে আশপাশের লোকজন এসে দেখে শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে আছে। মানুষের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায় মোবারক।

পরে শিশুটিকে তার পরিবার স্থানীয়দের সহযোগিতায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে জেলা সদর হাসপতালে প্রেরণ করেন।

এ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত মোবারক। আতঙ্কে আছে শিশুটির পরিবার। মোবারকের বিরুদ্ধে এর আগে ছাগল বলাৎকারের অভিযোগ রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

ksrm

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানান, মোবারক এর আগেও পার্শ্ববর্তী ধনকুড়া গ্রামের একটি ছাগলকে বলাৎকার করে জরিমানা দিয়েছে।

শিশুটির মা বলেন, আমার মেয়েকে একা পেয়ে মোবারক ধর্ষণ করেছে। মেয়েকে নিয়ে আমরা হাসপতালে আছি। আমরা নিরীহ মানুষ, আতঙ্কে সময় পার করছি। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই। এ ব্যাপারে অভিযুক্তের বাবা লিচু মিয়াকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য চিত্ত রঞ্জন দত্ত জানান, এ ঘটনাটি আমিও শুনেছি। শিশুটি বর্তমানে হাসপতালে চিকিৎসায় আছে। শিশুটির পরিবারের সাথে কথা হয়েছে। তারা আসলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার জানান, এমন একটি ঘটনার কথা শুনেছি। আমাদের কাছে কেউ কোন অভিযোগ নিয়ে এখনো আসেনি। আমারা খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করছি।

বিষয়টি বড়ই ন্যাক্কারজনক। স্থানীয় প্রশাসন এই নরপিশাচকে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে সঠিক বিচারের ব্যবস্থা করবেন, এমনটি আশা করছেন, এটিভি সংবাদের সম্পাদক এস এম জামান।