atv sangbad

Blog Post

atv sangbad > সম্পাদকীয় > নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

নেতা ও নেতৃত্ব কাকে বলে? আদর্শ নেতার গুণাবলি কী?

এস এম জামান, এটিভি সংবাদ 

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে।

পৃথিবীতে যত রকমের কঠিন কাজ আছে সেগুলোর মধ্যে নেতৃত্ব দেওয়াকে একটি কঠিন কাজ হিসেবে গণ্য করা হয়। একজন নেতা তখনই সফল হিসেবে বিবেচিত হন যখন তিনি তাঁর অধীনস্থ লোকদের ওপর ইতিবাচক ও প্রত্যাশিত উপায়ে প্রভাব বিস্তার করে নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হন। এই নিবন্ধে নেতা, নেতৃত্ব এবং একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি প্রসঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে।

নেতা কাকে বলে?

যে ব্যক্তি একটি দল বা গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত সদস্যদের মধ্যে প্রভাব বিস্তার করে নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্য দিক নির্দেশনা প্রদান করেন এবং প্রদান করা নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন রকম প্রচেষ্টা চালান তাকে নেতা বলে। নেতা শব্দের ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো লিডার (Leader)।

নেতৃত্ব কী?

নেতৃত্ব হলো ব্যক্তির সেই সক্ষমতা যার মাধ্যমে নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জন করার জন্য দল, গোষ্ঠী বা সংগঠনের অন্তর্ভুক্ত সদস্যদের অনুপ্রেরণা ও দিক নির্দেশনা দিয়ে প্রভাবিত করা ও পরিচালিত করা সম্ভব হয়। নেতৃত্ব শব্দের ইংরেজি প্রতিশব্দ হলো লিডারশিপ (Leadership)।

নেতৃত্বের মূল কাজ হলো আওতাভুক্ত ব্যক্তিবর্গকে প্রভাবিত করা, যাতে তারা নেতার নির্দেশ মেনে নেয় ও সে মোতাবেক কাজ করে।

নেতৃত্বের আরও কয়েকটি সংজ্ঞা

  • লক্ষ্য অর্জনের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আচরণ প্রভাবিত করার দক্ষতাকে বলা হয় নেতৃত্ব।
  • নেতৃত্ব হলো এমন এক প্রক্রিয়া, যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি নির্দেশনা, পরামর্শ ও কৌশল দ্বারা অপরকে নিয়ন্ত্রণ কিংবা আচার আচরণ ও মনোভাবের উপর প্রভাব বিস্তার করে।
  • নেতৃত্ব হচ্ছে নেতা কর্তৃক প্রভাব বিস্তারের একটি সামাজিক প্রক্রিয়া যাতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা লক্ষ্য অর্জনের জন্য স্বেচ্ছায় কাজে অংশগ্রহনে কাজ করে।
  • নেতৃত্ব হচ্ছে জনগনকে প্রভাবিত এমন একটি কলা-কৌশল যাতে যাতে তারা দলীয় লক্ষ্য অর্জনে স্বতস্ফুর্তভাবে উদ্বুদ্ধ হয়।
  • নেতৃত্ব হচ্ছে লক্ষ্য নির্ধারণ ও বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে নিয়োজিত একটি সংগঠিত দলের কার্যাবলীকে প্রভাবিত করার প্রক্রিয়া।

একজন আদর্শ নেতার গুণাবলি

একজন নেতা তাঁর দল, সংগঠন, গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠানের অপরাপর সদস্যগণের পথপ্রদর্শকরূপে চিহ্নিত। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নেতাকে প্রশাসক বলা যায়। প্রতিষ্ঠান একজন নেতা হলেন প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা, যিনি উদ্দেশ্যাবলি ও পরিকল্পনা প্রণয়নকারী। বহুমুখী দায়িত্ব পালন করার জন্য একজন নেতাকে বিচিত্রগুণের অধিকারী হতে হয়। তবে নির্দিষ্ট করে এর একটি গুণের তালিকা প্রণয়ন করা সম্ভব নয়। কারণ স্থান-কাল-পাত্র ভেদে বা বিষয় বিশেষে নেতৃত্বের গুণাবলি ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে।

এখানে একজন নেতার ২৯টি সাধারণ গুনাবলি উল্লেখ করা হলো-

ksrm

সাহসীকতা : যিনি নেতা হবেন তাকে হতে হবে নির্ভীক। ভয়-ডরহীন ভাবে তিনি প্রত্যাশিত লক্ষ্যে যাবেন অধীনস্থদের নিয়ে।

মোহনীয় ব্যক্তিত্ব : একজন সফল নেতাকে হতে হবে মোহনীয় ব্যক্তিত্বের অধিকারী। তিনি তার আচরনে সবাইকে মুগ্ধ করে প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্যের দিকে পরিচালিত করবেন।

সুদূরপ্রসারী কল্পনাশক্তি : একজন সফল নেতার সুদূরপ্রসারী কল্পনাশক্তির অধিকারী হতে হবে। তাকে পরিকল্পনা প্রনয়নে ও ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্বাচনের জন্য কল্পনাশক্তির আশ্রয় নিতে হবে। সুদূরপ্রসারী কল্পনাশক্তি যার মধ্যে নেই সে নেতা হলেও উত্তম নেতা হতে পারে না।

সিদ্ধান্ত গ্রহণের সক্ষমতা : লক্ষ্য অর্জনের জন্য পরিকল্পনামাফিক একজন নেতা বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকবেন, যা স্বাভাবিক। আর তাই নেতাকে অবশ্যই সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষমতা থাকতে হবে। জরুরি প্রয়োজনে বা যে-কোনো সঠিক ও দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার সক্ষমতা প্রদর্শন করে দল বা গোষ্ঠীকে এগিয়ে নিতে হয়।

সার্বিক দায়-দায়িত্ব গ্রহণের মানসিকতা : একজন প্রসাসককে সকল অবস্থায় সকল দায়-দায়িত্ব গ্রহনের মানসিকতা থাকতে হবে। যে-কোনো মুহুর্তে যে-কোনো যৌক্তিক  ঝুঁকি গ্রহণ করার মানসিকতা একজন নেতার থাকা চাই।

শারীরিক সুস্থ্যতা : যিনি নেতা হবে তাকে শারীরিকভাবে সুস্থ্য থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রুগ্ন ও দুর্বল হয়ে কখনো নেতার আসনে বসা যায় না। তবে বাস্তবক্ষেত্রে যদি এমন লক্ষ্য করা যায়, তা নামমাত্র নেতার উদাহরণ।

পরিবেশ ও সংগঠন সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা : নেতার অবশ্যই পরিবেশ ও সংগঠন সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা থাকতে হবে। নানা ধরনের উন্নয়নে তাকে পরিবেশ ও সংঠনের মধ্য দিয়েই কাজ করতে হয়।

মানবচরিত্র অনুধাবনের ক্ষমতা : একজন নেতা, বিশেষ ক্ষেত্রে প্রশাসক, যেহেতু মানুষ নিয়ে কাজ করবেন সেহেতু তাকে মানুষের চরিত্র ও আচরণ সম্বন্ধে সুতীক্ষ্ণ দৃষ্টিভঙ্গিগত জ্ঞান থাকা বাঞ্ছনীয়।

সাংগঠনিক জ্ঞান : একজন নেতার সাংগঠনিক জ্ঞানের অধিকারী হতে হবে। সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক জ্ঞান তাকে নিজ ক্ষেত্রে দক্ষতার সাথে কাজ করতে সাহায্য করবে।

যোগাযোগের দক্ষতা : সংগঠনের সকলের সাথে ও সংশ্লিষ্ট সমাজের সাথে উত্তম যোগাযোগ ব্যবস্থা একজন নেতাকে গড়ে তুলতে হয়। তিনি এমন যোগাযোগ কৌশল নির্ধারন করবেন যেন প্রতিষ্ঠানের সকলের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক সৃষ্টি হয়।

আত্মনিয়ন্ত্রণ ও সংযমশীলতা : একজন নেতার অবশ্যই আত্মনিয়ন্ত্রণ দক্ষতা থাকতে হবে এবং সংযমী হতে হবে। আবেগ ও যথেচ্ছাচার সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানের ধ্বংস ডেকে আনে।

ন্যায়পরায়ণতা : নেতা হবেন ন্যায় পরায়ণ। তিনি অন্যায় ও অবিচারের প্রতি বশীভূত হবেন না।

সহযোগিতামূলক মননশীলতা : সকলের সাথে সকল কাজে প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। অধস্তন কর্মচারী ও সমাজ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানের উন্নতি ঘটানো সম্ভব।

বিচার-বিবেচনার ক্ষমতা : প্রশাসক বা নেতাকে সব সময়ই বিচার বিবেচনা করে চলতে হয়। তার অজ্ঞতা ও অবিবেচনাপ্রসূত অনেক বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

বন্ধু-প্রতিমতা : নেতা হবেন সকলের প্রতি বন্ধু প্রতিম। তিনি সকলের বন্ধু ও দুর্দিনের সহায়ক হিসেবে থাকবেন।

বিশ্লেষণমূলক ক্ষমতা : নেতার অবশ্যই বিশ্লেষণমূলক ক্ষমতা থাকতে হবে কারণ তাকে বিভিন্ন রকম সিদ্ধান্ত নিতে হয়।

সাহস ও উদ্যম : সাহস ও উদ্যম নেতার যেকোন নেতার একটি মৌলিক গুণ হিসেবে স্বীকৃত। যে-কোনো বিপদে নেতা ভেঙ্গে না পড়ে সাহসের সাথে এগিয়ে যাবেন উদ্যমি মনোভাব নিয়ে প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্যের দিকে নিয়ে যাবেন।

সময় সচেতনতা : নেতাকে সময় সচেতন হতে হবে কারণ তিনি সময় সচেতন না হলে প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য অর্জনে ব্যঘাত ঘটবে, অধস্তন ব্যক্তিরা কাজে ফাঁকি  দিতে চাইবে।

সংশ্লিষ্ট কার্যবিষয় জ্ঞান : নেতা যে প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনের প্রধান সে প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনের যাবতীয় কাজ সম্পর্কে ধারণা থাকা আবশ্যক, অন্যথায় দক্ষতার সাথে কার্য পরিচালনা সম্ভব না।

ভারসাম্য রক্ষার ক্ষমতা : পক্ষপাতমূলক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে সংগঠন পরিচালনা না করে কর্মির ক্ষমতা ও দায়িত্বের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে। যদি প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণি ও মতভেদ থাকে তবে তাঁদের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে।

নমনীয় মনোভাব : নেতার বা প্রশাসকের সব সময় নমনীয় মনোভাব নিয়ে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করা উচিৎ। প্রয়োজনে নীতি, সিদ্ধান্ত, পরিকল্পনা, আদেশ, নির্দেশ পরিবর্তন করে উপযোগী ধারা প্রবর্তন করা নেতার অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

অনুসন্ধিৎসু :   নেতাকে অনুসন্ধিৎসু হতে হয়। কোনো ঘটনা বা সমস্যার কারণ অনুসন্ধানে উৎসাহী হলে তা সমাধান করাও সহজ হবে।

সৃজনী প্রতিভা : প্রশাসক বা নেতাকে সৃজনী প্রতিভার অধিকারী হতে হয়। এর বিকাশ ঘটিয়ে প্রতিষ্ঠানের সার্বিক কল্যাণ বয়ে আনা সম্ভব।

আন্তরিকতা : প্রশাসক হবেন প্রতিষ্ঠান ও কথা কর্মিদের প্রতি আন্তরিক।

পরমতের ওপর শ্রদ্ধাশীলতা : পরমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীলতা যে-কোনো মানুষের অন্যতম একটি সুন্দর গুণ যা একজন প্রশাসক বা নেতার মধ্যে অবশ্যই থাকতে হয় যার দ্বারা তিনি সবার মতামতই সমান গুরুত্ব দিয়ে শুনবেন এবং উপযুক্ত হলে কাজে লাগাবেন।

সাধারণ জ্ঞান : নেতা হবেন ব্যাপক সাধারণ জ্ঞানের অধিকারী। অজ্ঞ লোক কখনো নেতৃত্ব কিংবা সংগঠন চালাতে পারে না।

অধ্যবসায় : নেতাকে অধ্যবসায়ী হতে হবে। দৈনন্দিন খবর ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় বিষয়ে তিনি হবেন অধ্যবাসায়ী।

আত্মসমালোচনা : একজন নেতার জন্য আত্মসমালোচনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাঁর ভুল তিনি খুঁজে পেলে ভবিষ্যতে ভুল কম হবে।

সার্বিক ধারণা : নেতাকে প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনের সাথে জড়িত কর্মি, কাজ, সমাজ, বাজার, চাহিদা, মানুষের আচরণ ইত্যাদি সম্পর্কে সার্বিক ধারণা থাকতে হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ব্রেকিং নিউজ :